রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন

ঈদে জাকিয়া ফ্যাশন নিয়ে এল রকমারি পোশাক

জেরিন আক্তার॥
ঈদ। আর ঈদ মানেই উৎসবের রঙে নিজেকে রাঙানো। ঈদকে কেন্দ্র করে বেশ আগে থেকেই শুরু হয় ছেলেমেয়েদের জন্য বিভিন্ন রকম পোশাক কেনার ধুম। আসন্ন উৎসবের কথা মাথায় রেখেই ফ্যাশন সচেতনদের জন্য নতুন ট্রেন্ড নিয়ে এসেছে জাকিয়া ফ্যাশন।

এবারে ঈদ উপলক্ষে দেশীয় ঐতিহ্যের সঙ্গে আন্তর্জাতিক ফ্যাশনের সংমিশ্রণে বাহারি নকশা ও বৈচিত্র্যময় ডিজাইনের হরেক ঈদের পোশাক এখন পাওয়া যাচ্ছে জাকিয়া ফ্যাশন হাউজের লধশরুধভধংযরড়হ.পড়স ওয়েবসাইটে।
জাকিয়া ফ্যাশন প্রধান নির্বাহী জাকিয়া মাসুদ জানান, ঈদ মানে যেমন আনন্দ তেমনি নিজদের শেকড়, ঐতিহ্য অর্থাৎ উৎসের কাছে ফিরে যাওয়াও। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর ঈদে সবাই নিজ নিজ উৎসের কাছে ফিরে যায়। এই ফিরে যাওয়া ও ঈদে প্রিয়জনের জন্য কেনাকাটা আরো অর্থবহ করে তুলতে আমরা এবার স্লাভ আর জরজেট এবং লিলেন নিয়ে কাজ করেছি।

প্রতিটি দেশ ও জাতির রয়েছে নিজস্ব শিল্প ও সংস্কৃতি। এ শিল্প ও সংস্কৃতির পরিচয়েই দেশ ও জাতি পরিচিত হয়। বস্ত্র খাত আমাদের তেমনই এক ঐতিহ্য। অনেক অঞ্চলের মানুষ যখন গুহাবাসী, বাঙালি তখন অনেক সৃজনকর্মেই স্বচ্ছন্দ। তার একটি বস্ত্রবয়ন। তুলা উৎপাদন থেকে শুরু করে সুতা কাটা, কাপড় বোনায় বাঙালিরা ছিল অতুলনীয়। তাও যেমন তেমন কাপড় নয়, সেই সময় থেকেই উচ্চ মানসম্পন্ন কাপড় বুনে আসছে বাঙালি। যুগে যুগে বিভিন্ন দেশে তা রপ্তানিও হয়েছে। এর প্রমাণ মিসরের মমিতে পাওয়া । জাকিয়া ফ্যাশন এবারের ঈদ আয়োজনে ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি আরেক উৎসমূল লিলেন,জরজেট,মাখন,স্লাভ মোটিফ নিয়েও বহুমাত্রিক কাজ করেছে।

এবারে জাকিয়া ফ্যাশন ঈদ আয়োজনে মসলিনের সালোয়ার-কামিজ সেট ছাড়াও নতুন ট্রেন্ডে নারীদের জন্য থাকছে ড্র্যাপিং স্টাইল ইউনিক লং ড্রেস, টু পিস সেট, সালোয়ার-কামিজ, , কামিজ প্যাটার্ন পালাজ্জোসহ ফিউশনভিত্তিক শর্ট টপ অ্যান্ড পালাজ্জো । মোটিফের ক্ষেত্রে এরাবিয়ান জরজেট ছাড়াও ব্যবহার করা হয়েছে ইসলামিক মোটিফ, ফ্লোরাল মোটিফ, আলপনা, চিরায়ত দেশীয় উপাদান, সহ বিভিন্ন ডিজাইন’, বলেন জাকিয়া মাসুদ।

এখনকার প্রায় সব বয়সী নারীরাই সালোয়ার-কামিজকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। জাকিয়া ফ্যাশন ঈদ আয়োজনে তাই থাকছে সমকালীন প্যাটার্ন, বৈচিত্র্যময় ছাঁড় ও বাহারি নকশার অজস্র সালোয়ার-কামিজ। এক্সক্লুসিভ সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে নিয়মিত সেটের কামিজেও এথনিক লুকের জন্য বিভিন্ন ধরনের ফ্লোরাল প্রিন্টের পাশাপাশি ব্যবহার করা হয়েছে।

এ ছাড়া, ফ্যাশন সচেতন তরুণীদের জন্য কালেকশনে থাকছে স্ক্রিন প্রিন্ট ছাড়াও মেটালিক ওয়ার্ক, কারচুপি ডিটেইলিং, এমব্রয়ডারি এমন কি উন্নতমানের লেইস সমৃদ্ধ টিউনিক ও লং কামিজ।

উৎসবের আবহ ফুটিয়ে তুলতে ঈদের পোশাকসমূহে বিশেষভাবে কফি, ম্যাজেন্টা, মেরুন, নীল, মিষ্টি, কালো, সাদা, সবুজ, বেগুনী ও গোলাপি সহ বিভিন্ন কালার ব্যবহার করা হয়েছে। কটন, লিনেন, জর্জেট ও সাটিন কাপড়ে তৈরি মূল পোশাকের সঙ্গে ওড়নায় ব্যবহার করা হয়েছে কর্টন ও লিলেনের পালাজ্জো। এ ছাড়া পালাজ্জোগুলো এমনভাবে নকশা করা যেন যে কোনো কামিজ, টিউনিক বা সিঙ্গেল পিসের সঙ্গে তা মানিয়ে যায়।

পোশাকে স্বপ্নের প্রতিফলন ঘটাতে ২০১৯ সালে যাত্রা শুরু করে জাকিয়া ফ্যাশন । বর্তমানে মালিবাগ রেলগেইস্থ আজাদ টাওয়ার, জাকিয়া ফ্যাশন নিজস্ব আউটলেট রয়েছে। এ ছাড়া িি.িলধশরুধভধংযরড়হ.পড়স থেকে ঘরে বসেই বাংলাদেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে জাকিয়া ফ্যাশন পণ্য কিনতে পারেন সম্মানিত ক্রেতারা।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY It Host Seba Mobile: 01625324144
Shares