বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
হাটহাজারীতে র‌্যাবের অভিযানে ৭ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার আটক  ১ হাটহাজারীতে তাল গাছের বীজ বপন করেছে উপজেলা প্রশাসন শেরপুরে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষ শেয়ারবাজারে লেনদেনের গতি বেড়েছে  সশরীরে হবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা ট্রাম্প-বাইডেনের চূড়ান্ত বিতর্কে থাকছে মাইক্রোফোন বন্ধের সুযোগ বিশিষ্ট সাংবাদিক শরিফুল ইসলাম খানের মার ইন্তেকাল, বিভিন্ন মহলের শোক ঢাকাস্থ গোপালগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির কমিটি গঠন সভাপতি মামুন, সা: সম্পাদক বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল সাত কর্মদিবসেই ধর্ষণ মামলার রায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী সাংবাদিক নামধারী চাঁদাবাজ জাহাঙ্গীর বাহিনীকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

বিদেশে চাকুরী দেয়ার নামে দালালচক্র পাচারকারীদের কাছে বিক্রি করে দিলো মাহিনুরকে

বিশেষ প্রতিবেদক!!
মা অসুস্থ, বাবা বৃদ্ধ। সংসারের ঘানি টানতে হচ্ছে ভাইবোন সকলের বড় সাহিনুরকে। কখনো গার্মেন্টসেে চাকুরী আবার কখনো সেলাই কাজ করে অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা আর বৃদ্ধ বাবাকে একটু স্বস্তি আর স্বামীহীন এ নারী তিন কন্যা সন্তানের মুখে দু’বেলা খাবার তুলে দিয়ে একটু হাসি ফুটাতে সংসারের এ বড় সন্তানটি যেন জীবন যুদ্ধের অগ্নিপরীক্ষায় নেমে পড়েন। ঢাকার যাত্রাবাড়ীর দক্ষিণ কাজলা দনিয়া এলাকার ৭/এ নামক বাড়িটির জীর্নশীর্ন ২ রুমের একটি বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন মাহিনুররা।
সংসারের অস্বচ্ছতার অবসান ঘটাতে মাহিনুর যেন নিজের ভবিষ্যতের কথা ভুলেই গেছেন। যাত্রাবাড়ী এলাকায় গার্মেন্টসে চাকরীরকালে দালালচক্রের খপ্পরে পড়েন সাহিনুর। ওই চক্রটির মূল হোতা জৈনক আলাউদ্দিন বকশী ও তার লোকদের বিভিন্ন প্রলোভনের শিকার হন সাহিনুর। এ চক্রটির প্রধান আলাউদ্দিন বকশী সাহিনুরকে বিদেশে নিয়ে বড় মাপের চাকুরী দিয়ে বেশি টাকা বেতন পাওয়ার লোভ দেখান। তার কথা বিশ্বাস করতে পারছিলেননা মাহিনুর। একপর্যায় সাহিনুরকে বিশ্বাস করাতে আলাউদ্দিন তার সিন্ডিকেটর সদস্য মানসুর সর্দার, জাহানঙ্গীর তালুকাদার ও ফকরুল ইসলাম সহ বেশ কয়েকজনকে মাহিনুরের সামনে হাজির করান।
তাদেরকে দিয়ে মাহিনুরকে বলানো হয় যে, তাদের বোন ও অনেক নারী আত্মীয় আলাউদ্দিন বকশীর মাধ্যমে অল্প খরচে বিদেশে গিয়ে এখন ভালো বেতন পাচ্ছেন। ঐ পরিবার গুলো অল্প দিনেই কোটিপতি হয়ে গেছেন। বিদেশে নারী পাচারচক্রটির নানা প্রলোভনমূলক কথা গুলো সরল মনে বিশ্বাস না করে পারেননি মাহিনুর। মাহিনুরের পরিবারে পক্ষ থেকে এই প্রতিবেদককে জানানো হয় দালালচক্রের মূল হোতা আলাউদ্দিন বকশী মাহিনুরকে সৌদিআরব নিবে বলে বিভিন্ন সময় তাদের পাঁচ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেন। একপর্যায়ে অনেক ঘুরাঘুরি পর একটি এজেন্সির মাধ্যমে মাত্র ত্রিশদিনের মেয়াদে ভিসা নিয়ে মাহিনুরকে মালয়েশিয়া পাঠানো হয়। বলা হয়, সৌদিআরব যেতে হলে মালয়েশিয়ায় একটি প্রশিক্ষণে অংশ নিতে হবে। এ জন্যই সেখানে পাঠাচ্ছি।
তাদের কথা মত চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি মাহিনুর পাড়িজমান মালয়েশিয়ায়। মাহিনুর জানান, প্লেন থেকে নামার পরপরই একটি কালো রঙের মাইক্রোবাস এসে এয়ারপোর্ট থেকে তাকে নিয়ে যায়। একটি বিল্ডিং এর ফ্ল্যাটে তাকে উঠানো হয়। মাহিনুর সেখানে গিয়ে দেখতে পান আরো বহু বাঙালী নারী রয়েছে। যাদের উপর চালানো হচ্ছে যৌন নিপীড়ন। নিরুপায় মাহিনুর সেখানে প্রায় পাঁচদিন বন্দি ছিলেন।
ঐ সময়ের বিভৎসদিন গুলোর কথা বলতে গিয়ে মাহিনুর কান্নায় ভেঙে পড়েন। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার পর মাহিনুর জানতে পারেন তাকে বাংলাদেশ থেকে পাচারকারীদের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে। সেখান তার উপর নির্যাতনের স্টিমরোলার চলছিল বলে এই প্রতিবেদককে জানানো হয়। এভাবে পাঁচদিন অতিবাহিত হলে সাহিনুর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। চিকিৎসাদিন অবস্থায় মাহিনুর হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। বাংলাদেশি এক ব্যক্তির সহযোগীতা নিয়ে হাই কমিশনের আশ্রয়ে এ বছরের ২১ জানুয়ারি পাচারকারীদের বন্দিদশা থেকে অবশেষ দেশের মাটিতে ফিরে আসেন সেই সাহিনুর। দেশে ফিরার পর দালালচক্রটিকে খুঁজে বের করলেও মাহিনুর ফিরত পাননি তার পাঁচ লক্ষাধিক টাকা। রক্ষা করতে পারেননি নিজের সম্ভ্রম। এদিকে মাহিনুর জানান, দেশে ফিরার পর গত দশ মাস যাবৎ মানব পাচারকারী দালালচক্রটি তাকে অপহরণে চেষ্টা চালাচ্ছে। আলাউদ্দিন বকশী গুন্ডাবাহিনী তাকে বাসায় গিয়ে খোঁজাখুঁজি করছে।
ফলে ঘর ছেড়ে মাহিনুর এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে। বর্তমান মাহিনুর ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান। সাহিনুরকে নিয়ে তার পরিবার এখন চরম আতংক, উদ্বেগ আর উৎকন্ঠায় রয়েছেন। মাহনুর জানান আমি জীবনের নিরাপত্তার ভয়ে উক্ত বিষয়টি আমি আইনের কাছে যেতে সাহস করিনি। কিন্তু সকলের সহযোগীতা পেলে এ সকল পাচারকারীদের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই করতে পারবেন বলে দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করেন নির্যাতিতা মাহিনুর।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY It Host Seba Mobile: 01625324144
Shares