বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০১:৪০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
বৃদ্ধাশ্রম’ নিয়ে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত র‌্যাপ গান নির্মাণ করছেন তরুণ নির্মাতা জাহিদ হাসান রাতুল প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে মহিলা কাউন্সিলর সৈয়দা রোকসানা ইসলাম চামেলীর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন স্বপ্নধরার চোখধাঁধানো সাইনবোর্ডে প্রতারণা! শেরপুরের শ্রীবরদীর নির্যাতিত শিশু গৃহকর্মী সাদিয়ার বাড়িতে এখনও চলছে শোকের মাতম : খুনির ফাঁসি দাবী এলাকাবাসীর হাটহাজারীতে চোরাই পাচারকৃত চিড়াই কাঠ জব্দ সুমন খানের বারুদে বোলিং, ১৭৩ রানেই আটকে গেল শান্তর দল মাস্ক না পরলে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সেবা নয় অন্যদিগন্ত এর সম্পাদককে হামলা মামলার হুমকি থানায় জিডি বানিয়াচংয়ে প্রেমিকার লাশ ফেলে পালিয়ে যাবার সময় ঘাতক প্রেমিক আটক দুঃসময়ে কারামুক্ত করতে এগিয়ে আসেন রফিক-উল হক : প্রধানমন্ত্রী

শত কোটি টাকা দুর্নীতি, তদন্তে মাঠে নামছে দুদক

স্টাফ রিপোর্টার॥

পটুয়াখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র ডা. মো. শফিকুল ইসলামের মেয়াদে শহরের বিভিন্ন উন্নয়নকাজে অনিয়ম, কাজ না করে বিল উত্তোলন এবং নিম্নমানের কাজ করার বিষয়ে তদন্ত শুরু করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।  বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) থেকে অভিযোগের বিষয়ে অনুসন্ধান করতে মাঠে নামছে দুদক।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. ওয়াজেদ গাজী তদন্তের দায়িত্বে রয়েছেন। অভিযোগের বিষয়ে প্রকল্প সমূহের অনুসন্ধান শুরু হয়েছে ইতোমধ্যে। এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য ২০ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালীর বর্তমান পৌর মেয়রকে দুদকের পক্ষ থেকে চিঠি দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পৌরসভার বিগত দিনের একাধিক প্রকল্পের অন্তত সোয়া দুইশ কোটি টাকার কাজের তথ্য চাওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ২৪ স্পেটেম্বর থেকে দুদকের গঠিত প্রকৌশল কমিটি বিভিন্ন প্রকল্পের পরিমাপসহ প্রয়োজনীয় কাজ করবে। এজন্য সার্বিক সহযোগিতা করতে পৌরসভার সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পটুয়াখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় কার্যালয় এবং সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সেই আলোকে সুষ্ঠু এবং অনুসন্ধানী তদন্তের জন্য পটুয়াখালী দুদকের উপপরিচালককে নিয়োগ দেয়া হয়। এর আগে একই অভিযোগে মেয়রের অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্ত শুরু হলেও অজ্ঞাত কারণে তা স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে প্রত্যাহার করা হয়েছিল। ফলে দুইশ কোটি টাকা দুর্নীতির তদন্ত নিয়ে সংশয় ছিল নানা মহলের।

এ ঘটনায় সর্বশেষ গত ১৩ অক্টোবর দুর্নীতি দমন কমিশনের উপপরিচালক মো. মোজাহার আলী সরদার স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে বর্তমান মেয়র মো. মহিউদ্দিন আহম্মেদকে ২০১০-২০১১ অর্থবছর থেকে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছর পর্যন্ত পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়ক ও ড্রেন নির্মাণ, সম্প্রসারণ, টিউবওয়েল স্থাপন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যাদি চেয়ে নোটিশ করা হয়। এর আগে এসব বিষয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে ভিন্ন ভিন্নভাবে সংশ্লিষ্ট দফতরে কয়েকটি আবেদন জমা দিয়েছে স্থানীয়রা।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY It Host Seba Mobile: 01625324144
Shares