রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৮:৪৬ পূর্বাহ্ন

হত্যা চেষ্টা মামলার প্রধান আসামী মৎসমন্ত্রীর সঙ্গী

পিরোজপর প্রতিনিধিঃ
পিরোজপুরে শহরের ঠিকাদার উৎপল কুমার সাহাকে কুপিয়ে জখম করেছে পিরোজপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এস এম বায়জিদ হোসাইনসহ সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় পিরোজপুর সদর থানায় গত ২১ মে বৃহস্পতিবার রাতে সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান এস এম বায়েজীদ হোসেনকে প্রধান আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
আহত ঠিকাদার উৎপল কুমার সাহা (৩৪) পিরোজপুর পৌর সভার রাজারহাট এলাকার উত্তম কুমার সাহা’র পুত্র। অথচ আজ ২৪ জুলাই ২০২০ ইংরেজি তারিখে পিরোজপুর-১ আসনের এমপি মৎস ও প্রাণী মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এই মামলার এক নং আসামি এস এম বায়জিদকে সাথে নিয়ে পিরোজপুর শহরে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে মাছের পোনা পুকুরে ছাড়েন। এসময় পিরোজপুরের প্রশাসনও উপস্থিত ছিলেন। এই এস এম বায়জিদ হোসাইনের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুর সদরের কদমতলা ইউনিয়নে। তার বাবার নাম সমীর শেখ। তিনি জামায়াতের ওয়ার্ডের সাবেক নেতা। তার ছোট চাচা ফারুক শেখ মাদক ব্যবসায়ী। একাধিকবার পিরোজপুর সদর থানায় ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হয়েছেন। জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর আবারও ইয়াবা ব্যবসা শুরু করেছেন। তার মেজো চাচা সিহাব শেখ জামাতের সাবেক ইউনিয়ন নেতা। তিনি এখন জামায়াত ছেড়ে দিয়ে সুদের ব্যবসা করেন। তার অতিমাত্রায় সুদের কারনে শত শত পরিবার নিঃশ হয়ে জমি জমা বিক্রি করে এলাকা ছেড়ে গেছেন। তার দাদা কদমতলা ইউনিয়নের শান্তি কমিটির সদস্য দিলেন। আরেক দাদা আবু বকর বিএনপি করতেন। এস এম বায়জিদ হোসাইনের মামার বাড়ি পিরোজপুর সদরের জুজখোলা গ্রামের হাওলাদার বাড়ি। বায়জিদ বর্তমানে মামা বাড়ি থেকে নব্য আওয়ামী লীগ সেজেছেন। এই বায়জিদ ছাত্রলীগে ঢুকে নাম ভাঙ্গিয়ে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছেন। মাদক ব্যবসা, নদীতে চোরাই পথে কয়লা, বালু ও ইয়াবা ব্যবসা এব চাঁদাবাজি করে অর্থের মালিক হয়েছেন। একাধিক মেয়ের সাথে রয়েছে তার শারিরীক সম্পর্ক। প্রেমের সম্পর্ক করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পিরোজপুর শহরের এক হিন্দু পরিবারের মেয়ের টাকা পয়সা স্বর্ণ অলংকারসহ নগদ লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তার সাথে শারীরিক সম্পর্কও করেছে। পিরোজপুর শহরে বর্তমানে মাদকের আখড়া বানিয়েছেন এই বায়জিদ। স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়েদের হাতে তুলে দিয়েছেন ইয়াবা। অথচ মৎসমন্ত্রীর লোক হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চুপ রয়েছে।
হত্যা চেষ্টা মামলায় অন্য আসামীরা হলো- পিরোজপুর পৌর সভার কুমারখালী এলাকার সলেমান মিস্ত্রীল পুত্র মো: লাবু (২৭), পৌর সভার ২ নং ওয়ার্ডের পুরাতন সিকদার বাড়ী এলাকার রুস্তুম হাওলাদারের পুত্র মো: রাজু হাওলাদার, খুমরিয়া কলেজ রোড এলাকার বাহাদুর হোসেনের পুত্র মো: সাগর ওরফে ভোম সাগর (৩০) , ধুপপাশা এলাকার আনোয়ার তালুকদারের পুত্র শাহীণ তালুকদার (২৯), পৌর সভার ২ নং ওয়ার্ডের পুরাতন সিকদার বাড়ী এলাকার আ: মালেক সিকদারের পুত্র মনির সিকদার, মধ্যরাস্তা এলাকার খুসবুল আলম (খুসু) শেখ এর পুত্র জনি সেখ (৩২)।
মামলার বাদী আহত উৎপল কুমার সাহা জানান, তিনি পেশায় একজন ঠিকাদার। বর্তমানে গণপূর্ত বিভাগের অধীন ইন্দুরকানী উপজেলা থানা ভবন সহ ৭ টি কাজ চলমান রয়েছে। তিনি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ বিধায় তার উপর হামলাকারীরা কয়েকদিন ধরে কার ঠিকাদারী কাজ না করার জন্য নানা রকম হুমকি দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৮ মে-২০২০ সোমবার রাতে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে হত্যার উদ্যেশে শহরের উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের রাস্তায় উপর তার উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীরা তার মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করে এবং তার কাছে থাকা দুই লক্ষ টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। পরে তার ডাক-চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা তাকে গুরুতর আহতবস্থায় রাস্তায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে গুরুতর আহতাবস্থায় পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধীক ঠিকাদারা অভিযোগ করে জানান, একটি চক্র অবৈধ্য ভাবে ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে দীর্ঘদিন যাবত সাধারণ ঠিকাদারদের নানা ভাবে হয়রানি করে আসছে। সেই চক্রটিই সংখ্যালঘু ঠিকাদার উৎপল কুমার সাহাকে কুপিয়ে জখম করেছে। এ ঘটনায় যদি বিচার না হয় তাহলে অন্য ঠিকাদাররাও নিরাপত্তাহীনতায় থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY It Host Seba Mobile: 01625324144
Shares