এতিম তুবার দায়িত্ব নিতে চান সাংবাদিক এনায়েত | অন্যদিগন্ত

শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন

এতিম তুবার দায়িত্ব নিতে চান সাংবাদিক এনায়েত

স্টাফ রিপোর্টার॥

মা হারা ছোট্ট তুবার সব দায়িত্ব নিতে চান সাংবাদিক এনায়েত ফেরদৌস। মঙ্গলবার তিনি তার ফেসবুক পেজে এ বিষয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন।

তাতে তিনি লিখেছেন, ‘এতিম তুবার সমস্ত দায়িত্ব নিতে চাই, আমি ওর বাবা মা দু’টোই হতে চাই। প্লিজ সহায়তা করুন। ওকে সর্বোচ্চ শান্তিতে রাখতে চাই। প্লিজ হেল্প মি। গত শনিবার রাজধানীর বাড্ডায় ছেলে ধরা সন্দেহে উচ্ছৃঙ্খল কিছু মানুষের গণপিটুনিতে তাসলিমা বেগম রানু (৪০) নিহত হন। রানু এক ছেলে ও এক মেয়ের মা। স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে বছর কয়েক আগে। তারই মেয়ে ৪ বছর বয়সী তাসমিন তুবা। তাকে স্কুলে ভর্তি করার বিষয়ে খোঁজখবর নিতেই ওইদিন উত্তর বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়েছিলেন তাসলিমা।

ওইদিন বাসা থেকে বের হওয়ার সময় ছোট্ট মা তাসলিমা বেগম মেয়েকে ড্রেস কিনে আনবেন বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু কিছু অবিবেচকদের কবলে পড়ে তাকে নির্মমভাবে প্রাণ দিতে হয়।

এদিকে তাসলিমার মৃত্যুর পর অবুঝ দুটি সন্তানের ভাগ্যে কী হবে এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর মিলছে না। সরকার কিংবা অন্য কোনো কর্তৃপক্ষকে এখনো পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় নি। এ অবস্থায় ছোট্ট তুবার ভাগ্য নিয়ে উৎকণ্ঠা প্রকাশ করে অনেকেই বিভিন্ন মাধ্যমে মন্তব্য প্রকাশ করছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় সাংবাদিক এনায়েত ফেরদৌস তুবার দায়িত্ব নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করলেন।

এ বিষয়ে সাংবাদিক এনায়েত ফেরদৌস  বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কর্মীতের হাতে বিশ্বজিৎ হত্যা,বরগুনার রিফাত হত্যাকান্ডের পর বাড্ডার তাসলিমা বেগম রানুর নির্মম হত্যাকান্ড আমাদের মানবিকতার চরম অবক্ষয়ের কিছু নমুনা। ঘটনাগুলো আমাকে ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছে। আমি ঠিকমত ঘুমাতেও পারছিনা।আমি ওই ভিডিওটি কিংবা ছোট্ট মেয়ে তুবার কান্নার কোনো ভিডিও দেখিনি। ওগুলো দেখলে হয়তো আমি সহ্য করতে পারবো না।

তুবার দায়িত্ব নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি আমার স্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেছি। সবদিক বিবেচনা করে আমরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাকে আমি শতভাগ স্বাধীনতা দিয়ে মানুষের মত মানুষ করতে চাই।সে যদি বড় হয়ে তার বাবা বা অন্য কারো কাছেও যেতে চায় তবে তাতেও আমার কোনো আপত্তি থাকবে না। আমি চাই তুবা একটি ভিন্ন জগতে মানুষ হোক।

তিনি বলেন, দত্তক নিলে সেখানে সে পুরোপুরি আমার নিয়ন্ত্রণে থাকবে এটি আমি চাই না।আমি চাই ও যতদিন চাইবে আমার কাছে থাকবে। মুক্তভাবে বড় হবে। তাকে সর্বোচ্চ সুন্দর পরিবেশ ও সর্বোচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে যা যা লাগে আমি তার সবটাই করতে চাই।

সাংবাদিক এনায়েত ফেরদৌস বলেন,  আমার আড়াই বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তুবাকে পেলে আমি আমার সম্পত্তির একটি অংশ এমন ভাবে লিখে দিব যাতে আমার অবর্তমানেও তুবার কোনো প্রকার সমস্যা না হয়’।

এজন্য তুবার যে কোনো আত্মীয়কে আমার সঙ্গে (০১৬৮১-৭৩২৭৪৯) যোগাযোগের জন্যও অনুরোধ করছি-বলেন এনায়েত ফেরদৌস।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media


কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY Seskhobor.Com
Shares
CrestaProject