হিলিতে ওসি সহ ১৬জনকে স্ট্যান্ডরিলিজ | অন্যদিগন্ত

বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে এসেছে, দাবি শিল্পমন্ত্রীর  নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুলের সীমানা প্রাচীর ধসে প্রাণ হানির আতঙ্কে ৩ হাজার মানুষ লালমনিরহাট সদর উপজেলায় স্কুল ছাত্রীকে ৫দিন আটকে রেখে গনধর্ষণ ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সিনেমা ফিরিয়ে দিলেন পরিণীতি ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত শিশুটির পরিচয় মিলেছে, নিখোঁজ মা-দাদি বসুন্ধরা পেপারের লেনদেন পূর্ব ৬৯ কোটি টাকার মুনাফা নামল ২৯ কোটিতে ইডেনের ইনডোর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শোক কসবার ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৬, তদন্ত কমিটি শহীদ নুর হোসেনকে নিয়ে রাঙ্গার আপত্তিকর মন্তব্যে প্রতিবাদে ফুসে উঠেছে রংপুরের যুবলীগ

হিলিতে ওসি সহ ১৬জনকে স্ট্যান্ডরিলিজ

সাজু আহমেদ রুবেল (বিভাগীয় অফিস), রংপুর॥

অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে দিনাজপুরের হাকিমপুর (হিলি) থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সহ ১৬জনকে তাৎক্ষনিক (স্ট্যান্ডরিলিজ) বদলী করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জন উপ-পরিদর্শক (এসআই), ৮ জন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ও ৪ জন কনস্টেবল আছেন। মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয় সহ কয়েকটি আদেশে তাদের বদলী করা হয়।

পুলিশের একটি সুত্র জানায়, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেনকে ঢাকায় শিল্প পুলিশে, উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. রাকিব হোসেনকে পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া পুলিশ ফাঁড়ীতে এবং মো. আমীর সোহেলকে রাজশাহী রেঞ্জে বদলী করা হয়।

এছাড়া আরও ১৩ জনকে বিভিন্ন থানা, পুলিশ লাইনে বদলী করা হয়েছে। এদিকে পুলিশ, স্থানীয় আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা ও স্থানীয় লোকজনেরা জানান, মো. আনোয়ার হোসেন অফিসার ইনচার্জের (ওসি) দায়িত্ব নেওয়ার আগে তিনি হাকিমপুর থানায় তদন্ত পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন। তখন ওসির দায়িত্বে থাকা আব্দুল হাকীম আজাদকে ষড়যন্ত্র করে বদলী করান। এরপর তিনি থানার অফিসার ইনচার্জের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে মাদক নির্মূলের নামে স্থানীয় মাদকের গড ফাদারদের সাথে আতাঁত করে লাখ লাখ টাকার ঘুষ আদায় করেন, মাদক প্রতিরোধ কমিটি গঠন করে শিশু-কিশোরদের দিয়ে স্থানীয় ও বাইরের লোকজনদের সম্মানহানী করা, নিরীহ লোকজনের নামে মাদকের মিথ্যা মামলা দিয়ে স্বার্থ হাসিল করা, হিলি স্থলবন্দরের পানামা পোর্টে ৩টি ভেকু দিয়ে একক ভাবে ব্যবসা করা, পুলিশের নামে চোরাচালানের টাকা আদায়ে লাইনম্যান নিয়োগ করা, অফিসার ইনচার্জের দায়িত্ব পালনের সময়সীমা না হলেও দায়িত্ব নেওয়া, বন্দরে পণ্যবাহী ট্রাক থেকে চাঁদা আদায়, ভারতীয় চোরাচালান ও নারী পাচার চক্রের গডফাদার হাড়ীপুকুরের আতিয়ার রহমানের সাথে অর্থনেতিক সখ্যতা, কয়েকটি ট্রাক সহ অবৈধ সম্পদের মালিক হওয়া, এলাকার স্বর্ণ ও হুন্ডি মামলার আসামীদের সাথে নিয়ে থানায় আড্ডা দেওয়া সহ কক্সবাজারে ভ্রমনে যাওয়া, গর্ভবতী নারীকে থাপ্পড় মারা, লোক দেখানো বিভিন্ন অনুষ্ঠানে শিশু শিক্ষার্থীদের জড়ো করে ঘন্টার পর ঘন্টা বসিয়ে রাখা এবং শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে তাকে এই বদলী করা হয়েছে।

অন্যদিকে উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আমীর সোহেলের নামেও নিরীহ লোকজনদের হয়রাণী সহ মিথ্যা মামলা দেওয়া এবং লোকজনকে আটক করে টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।এবিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) মো. রেজাউল করিম সাংবাদিকদের ওসি সহ ১৫ জনের বদলীর সতত্য স্বীকার করেছেন। তবে কি কারণে এক সাথে থানা থেকে ১৬ জনের বদলী এব্যাপারে তিনি কিছু মন্তব্য করেননি।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media


কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY Seskhobor.Com
Shares
CrestaProject