র‌্যাব-১১'র অভিযানে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার-৪ | অন্যদিগন্ত

বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০, ০৪:৩২ অপরাহ্ন

র‌্যাব-১১’র অভিযানে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার-৪

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ॥

নাারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ ও মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পৃথক দু’টি অভিযানে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল এবং ইয়াবাসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১’র সদস্যরা। শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) বিকালে সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীনগরে অবস্থিত র‌্যাব-১১’র সদর দপ্তর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: আলেপ উদ্দিন, পিপিএম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।
এসময় ৬০০ বোতল ফেন্সিডিল ও ১২০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ একটি পিক-আপ এবং একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়।

ধৃতরা হলো, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার পূর্ব কাউনিয়া এলাকার সোহেল কাজী (৩১) ও তার স্ত্রী সাবাহ আফরিন (২০) এবং একই জেলার সদর থানার রঘুনাথপুর এলাকার মামুন খাঁন ও দক্ষিণ বাগাদি এলাকার মাহবুবুল আলম।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, শনিবার ভোর পৌনে ৪টায় র‌্যাব-১১’র একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া থানার আনারপুরা বাস স্ট্যান্ডে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে চেকপোষ্টে সন্ধিগ্ধ পন্য বোঝাই একটি মিনি ট্রাক তল্লাশী করে ৬০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী মামুন খান ও মাহবুবুল আলম নামে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা কুমিল্লার সীমান্ত এলাকা হতে পিক-আপে খালি বস্তা বোঝাই করে ঢাকা যাচ্ছিল। তারা খালি বস্তার ভেতর বিশেষ কায়দায় লুকিয়ে ফেনসিডিল নিয়ে এসে নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকার বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ করত।

অপরদিকে, গত শুক্রবার বিকাল আড়াইটায় র‌্যাবের একই টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ থানার মোগড়াপাড়া বাস স্ট্যান্ড এলাকায় চেকপোষ্টে একটি পাইভেট কারে তল্লাশী চালিয়ে ১২০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলে এবং মাদক বিক্রয়ের নগদ ৬,০৫৫ টাকা উদ্ধারসহ সোহেল কাজী ও তার স্ত্রী সাবাহ আফরিনকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কারটি জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা পরস্পর যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা ও এর আশপাশের এলাকায় অভিনব পন্থায় নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয় ও সরবরাহ করে আসছিল। তার একমাত্র পেশা ছিল মাদক ব্যবসা। জিজ্ঞাসাবাদে তারা আরোও স্বীকার করে যে, তারা দীর্ঘদিন যাবৎ উবার গাড়ী ব্যবহার করে পরস্পর যোগসাজসে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক ও পরিচয়কে পুঁজি করে অবৈধভাবে চট্টগ্রাম অঞ্চলের সীমান্ত এলাকা দিয়ে অভিনব কায়দায় নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য ইয়াবা বাংলাদেশে প্রবেশ করায় এবং বিভিন্ন কৌশলে নিয়ে এসে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে উবার প্রাইভেটকারযোগে সরবরাহ করে আসছে।
গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে স্ব স্ব থানায় আইনগত কার্যক্রম প্রকিয়াধীন রয়েছে বলেও র‌্যাব নিশ্চি করেছে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media


কপিরাইটঃ ২০১৬ দৈনিক অন্যদিগন্ত এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY Seskhobor.Com
Shares
CrestaProject